স্ত্রী তার স্বামীকে পরীক্ষা করার জন্য স্বামীর ঘরে…দেখলে চমকে যাবেন, দেখুন একবার

এরকম আরও মজাদার নিউজ পেতে আমাদের পেজটি স্ক্রল করে নীচে দেখুন অথবা আমাদের নতুন সংযোজন আরও পড়ুন অপশনটিতে ক্লিক করুন। আজ এই প্রতিবেদনে আপনাদের একটি গল্প বলবো, যেটি পড়লে বুঝতে পারবেন, ভালোবাসা আসলে কি! কিভাবে হয়।

আসুন দেখে নিই। এক স্বামী ও তার স্ত্রী ছিলেন। স্ত্রী তার স্বামীকে সন্দেহ করতেন। তো সেই সন্দেহের বশে স্ত্রী ঠিক করলেন একদিন তার স্বামী কে পরীক্ষা করবেন। সেই মতো তিনি তার স্বামী অফিস থেকে ফেরার আগে, একটি চিঠি লিখে টেবিলের উপর রেখে নিজে গিয়ে লুকোলেন খাটের তলায়। তার স্বামী বাড়ি এসে চিঠিটা দেখতে পেয়ে সেটা পড়লেন।

চিঠিটায় লেখা ছিল যে, “তুমি আজকাল আমাকে আর ভালোবাসোনা। আমার থেকে দূরে সরে যাচ্ছো তুমি। আমাকে আর আগের মতো করে ভালোবাসো না তুমি। মনে হয় তোমার জীবনে অন্য কোন মেয়ে এসেছে। তাই তোমার আর কষ্ট করতে হবে না। আমি নিজেই সরে যাচ্ছি। আমি চলে যাচ্ছি তোমায় ছেড়ে। ভালো থেকো তুমি।”

 

চিঠিটা পড়ে স্বামী, ফোন বের করে ফোন করলেন। এবং বললেন যে, জানু ওই আপদটা বিদায় হয়েছে। এবার আমরা শান্তিতে একসাথে থাকতে পারবো। আমি আসছি। তুমি রেডি হয়ে থাকো। এই বলে স্বামী রেডি হয়ে বেরিয়ে গেলো। এদিকে স্ত্রী, খাটের নীচে মুখ চাপা দিয়ে কাঁদছিল। এবার স্বামী চলে যাওয়ার পর খাটের নীচ থেকে বেরিয়ে এলো। বেরিয়ে এসে খাটের উপর দেখলো আর একটা চিঠি। চিঠিটা খুলে স্ত্রী পড়তে লাগলো। চিঠিটায় লেখা ছিল।

আরও পড়ুন- [এই ছবিটি zoom করে দেখলে আপনার মাথায় হাত পরবে,মেয়েটিকে ক্লিক করে zoom করুন একবার]

প্রিয়তমা, পাগলী বউ একটা আমার! চলে গেছো ভালো কথা, তাহলে খাটের নিচে তোমার পা গুলো দেখা যাচ্ছে কেনো? আমি তো তোমার জন্য ই কাজকর্ম করি, তোমার আর আমার ভবিষ্যতের জন্যই, তোমার সুখের জন্য ই তো এত কষ্ট কর। তাও তুমি আমায় ভুল বোঝ। আমি তোমায় অনেকটা ভালোবাসি। আমি কাউকেই ফোন করিনি। আমি বাজারে যাচ্ছি, মাংস আনতে। তুমি দুজনের খাবার রেডি করো, এসে একসাথে খাবো। আমার পাগলী একটা!

আরও পড়ুন- [বিয়ে করলে মোটা মেয়েকেই করুন, এটাই পরামর্ষ দিচ্ছেন আমেরিকান গবেষকেরা, কারন জানলে অবাক হবেন]

লেখাটি দেখে স্ত্রী, বসে বসে কাঁদতে লাগলো। সে বুঝতে পারলো কত বড় ভুল সে করতে যাচ্ছিল। এইভাবে সে তার ভুল থেকে শিক্ষা নিল। এর থেকে বোঝা গেলো, ভালোবাসায় সন্দেহ নয়। বিশ্বাস রাখতে হয়! একটা ছেলে যত কষ্ট করে তা তার প্রিয়জনকে সুখী রাখার জন্যই করে!

Updated: December 7, 2018 — 12:31 pm